৯ম-১০ম শ্রেণীর বাংলা ব্যাকরণ বাের্ড বই থেকে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর পর্ব- ৬
Important Q&A from Bangla Grammar Baird Book of 9th-10th class part-6

১) সংখ্যাবাচক শব্দ- ৪ প্রকার

২) তারিখ বাচক শব্দ – ১ থেকে ৪ পর্যন্ত হিন্দি নিয়মে সাধিত

৩) বচন ব্যাকরণের- পারিভাষিক শব্দ

৪) বচন শব্দের অর্থ- সংখ্যার ধারণা

৫) বাংলা ভাষায় বচন-২ প্রকার।

৬) টা, টি খানা, খানি- বিশেষ্যের একবচন নির্দেশ করে

৭) উন্নত প্রাণীবাচক শব্দে ব্যবহৃত – রা

৮) প্লাণিবাচক ও অগ্রাণিবাচক শব্দের বহু বচনে – গুলা, গুলি,গুলাে

৯) ক্তর বহুবচনে ব্যবহৃত হয়- পাল ও যূথ।

১০) সমাস মানে -সংক্ষেপ, মিলন

১১) সমাসের রীতি বাংলায় এসেছে- সংস্কৃত থেকে

১২) সমাস নিষ্পন্ন পদের নাম- সমস্তপদ

আরো পড়ুন :   জ্যোৎস্না রাতে

১৩) যে যে পদের সমাস হ্য তাদের বলে – সমস্যমান পদ

১৪) সমাস যুক্ত পদের প্রথম অংশকে বলে – পূর্বপদ।

১৫) পরবর্তী অংশকে বলে – উত্তরপদ

১৬) সমস্তপদকে ভাঙ্গলে পাওয়া যায় – ব্যাস বাক্য বা বিগ্রহবাক্য

১৭) সমাস প্রধানত – ৬ প্রকার

১৮) দ্বন্দ্ব সমাস চেনার উপায় – এবং, ও, আর এই ৩ টি অব্যয় থাকবে

১৯) মিলনার্থে দ্বন্দ্ব – মা-বাপ, চা-বিস্কুট

২০) বিরােধার্থে দ্বন্দ্ব – দা- কুমড়া, অহি-নকুল

২১) বিপরীতার্থে দ্বন্দ্ব – জমা-খরচ, আয়-ব্যয়

২২) সমার্থক অর্থে দ্বন্দ্ব – হা-বাজার, খাতা- পত্র

২৩) অলুক দ্বন্দ্ব সমাস- দুধে-ভাতে, জলে-স্থলে

২৪) বহুপদী দ্বন্দ্ব সমাস হলাে- তিন বা বহু পদের দ্বন্দ্ব

২৫) বহুপদী দ্বন্দ্ব সমাসের উদাহরণ – সাহেব বিবি গােলাম

আরো পড়ুন :   নীচ যদি উচ্চভাসে সুবুদ্ধি উড়ায়ে হেসে

২৬) কর্মধারয় সমাসের চিহ্ন- বিশেষণের সাথে বিশেষ্যের সমাস হয়

২৭) কর্মধারয় সমাস – নীলপদ্ম, কাঁচামিঠা, জজ সাহেব, ধােয়ামােছা

২৮) কর্মধারয় সমাস- ৪ প্রকার

২৯) মধ্যপদলােপী কর্মধারয় সমাস- সিংহাসন, সাহিত্যসভা, স্মৃতিসৌধ

৩০) উপমান কর্মধারয় সমাস – ভ্রমরকৃষ্ণ, তুষার শুভ্র, অরুণরাঙ্গা।

৩১) উপমান অর্থ- তুলনীয় বস্তু।

৩২) প্রত্যক্ষ বস্তুর সাথে পরােক্ষ বস্তুর তুলনা করলে প্রত্যক্ষ বস্তুকে বলে – উপমেয

৩৩) যার সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে তাকে বলে – উপমান

৩৪) উপমিত কর্মধারয় সমাস – চন্দ্রমুখ, সিংহপুরুষ

৩৫) রূপক কর্মধারয় সমাস-ক্রোধানল, বিষাদসিন্দু, মনমাঝি

৩৬) তৎপুরুষ সমাস- ৯ প্রকার