জুলাই ২৫, ২০২১
Home » রাষ্ট্র ও সরকার | রাষ্ট্রের ধরন | অর্থনীতির ভিত্তিতে রাষ্ট্র | ক্ষমতার উৎসের ভিত্তিতে রাষ্ট্র
পৌরনীতি ও নাগরিকতা

রাষ্ট্র ও সরকার | রাষ্ট্রের ধরন | অর্থনীতির ভিত্তিতে রাষ্ট্র | ক্ষমতার উৎসের ভিত্তিতে রাষ্ট্র

রােমান সভ্যতা | সভ্যতায় রােমের অবদান | রোমান আইনের ইতিহাস

রাষ্ট্র ও সরকারব্যবস্থা

রাষ্ট্র ও সরকার : রাষ্ট্র একটি রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান। আর সরকার রাষ্ট্র গঠনের অন্যতম প্রধান উপাদান। সরকার মূলত রাষ্ট্রের মুখপাত্র হিসেবে দেশ পরিচালনা করে। রাষ্ট্র ও সরকার বিভিন্ন রকম হতে পারে। রাষ্ট্রের সামাজিক ও রাজনৈতিক চাহিদার বিভিন্নতার কারণে বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রে বিভিন্ন ধরনের সরকারব্যবস্থা গড়ে উঠেছে। এ অধ্যায়ে আমরা বিভিন্ন ধরনের রাষ্ট্র ও সরকারপদ্ধতি সম্পর্কে জানব ।

এ অধ্যায় পড়া শেষে আমরা –
• বিভিন্ন ধরনের রাষ্ট্র ও সরকারব্যবস্থা বর্ণনা করতে পারব।
• বিভিন্ন সরকার ও রাষ্ট্র ব্যবস্থায় নাগরিকের অবস্থান ও সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক ব্যাখ্যা করতে পারব।
• গণতন্ত্র ও একনায়কতন্ত্রের পার্থক্য নির্ণয় করতে পারব।
• গণতান্ত্রিক আচরণ শিখব ও তা প্রয়ােগ করতে উদ্বুদ্ধ হব।

রাষ্ট্র ও সরকার

‘রাষ্ট্র ও সরকার’ এ দুটি অনেক সময় সমার্থক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু এ দুটির মধ্যে মৌলিক পার্থক্য আছে। রাষ্ট্র একটি পূর্ণাঙ্গ ও স্থায়ী প্রতিষ্ঠান। এটি সার্বভৌম বা সর্বোচ্চ ক্ষমতার অধিকারী। আর সরকার রাষ্ট্র গঠনের চারটি উপাদানের (জনসংখ্যা, ভূখণ্ড, সরকার ও সার্বভৌমত্ব) মধ্যে একটি উপাদান মাত্র। পৃথিবীর সব রাষ্ট্র একই উপাদানের সমন্বয়ে গঠিত হলেও সব রাষ্ট্র ও সরকারব্যবস্থা এক ধরনের নয়। আবার সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে যেকোনাে দেশে রাষ্ট্র ও সরকারের স্বরূপ পরিবর্তিত হতে পারে।

রাষ্ট্রের ধরন

বিশ্বে বিভিন্ন ধরনের রাষ্ট্রব্যবস্থা লক্ষ করা যায়। নিচের ছকে রাষ্ট্রের বিভিন্ন রূপ লক্ষ করি।

রাষ্ট্র ও সরকার

অর্থনীতির ভিত্তিতে রাষ্ট্র

সম্পত্তি বা অর্থনৈতিক ব্যবস্থার উপর নিয়ন্ত্রণ থাকা না-থাকার ভিত্তিতে রাষ্ট্র দুই ধরনের হয়, যেমন- পুঁজিবাদী রাষ্ট্র ও সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র।

পুঁজিবাদী রাষ্ট্র

পুঁজিবাদী রাষ্ট্র বলতে সেই রাষ্ট্রকে বােঝায়, যেখানে সম্পত্তির উপর নাগরিকদের ব্যক্তিগত মালিকানা স্বীকার করা হয়। এ সরকারব্যবস্থায় উৎপাদনের উপাদানসমূহ (ভূমি, শ্রম, মূলধন ও ব্যবস্থাপনা) ব্যক্তিগত মালিকানায় থাকে। এর উপর সরকারের কোনাে নিয়ন্ত্রণ থাকে না। অবাধ প্রতিযােগিতার মাধ্যমে উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যবস্থা পরিচালিত হয়। এ ধরনের রাষ্ট্রে নাগরিকগণ সম্পদের মালিকানা ও ভােগের ক্ষেত্রে স্বাধীন। বর্তমান বিশ্বের অধিকাংশ রাষ্ট্রই পুঁজিবাদী।

সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র

সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র বলতে সেই ধরনের রাষ্ট্রকে বােঝায়, যা ব্যক্তিমালিকানা স্বীকার করে না। এতে উৎপাদনের উপকরণগুলাে রাষ্ট্রীয় মালিকানায় থাকে। রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণে উৎপাদন ও বণ্টনের ব্যবস্থা পরিচালিত হয়। এটি পুঁজিবাদী রাষ্ট্রের বিপরীত। সমাজতন্ত্রে ব্যক্তিস্বাতন্ত্রকে স্বীকার করা হয় না। এ ধরনের রাষ্ট্রে একটিমাত্র দল থাকে। গণমাধ্যম রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণে থাকে। বিরােধী মত প্রচারের সুযােগ থাকে না। যেমন- চীন এবং কিউবা সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র। |

আরো পড়ুন :   নাগরিকের কর্তব্য | কর্তব্যের শ্রেণিবিভাগ | অধিকার ও কর্তব্যের সম্পর্ক

ক্ষমতার উৎসের ভিত্তিতে রাষ্ট্র

ক্ষমতার মালিক কে? জনগণ, না একক কোনাে ব্যক্তি না কোনাে গােষ্ঠী? ক্ষমতার উৎসের ভিত্তিতে রাষ্ট্রকে আবার দুভাগে ভাগ করা যায়। যথা – গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ও একনায়কতান্ত্রিক রাষ্ট্র।

গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র

যে শাসনব্যবস্থায় রাষ্ট্রের শাসনক্ষমতা রাষ্ট্রের সকল সদস্য তথা জনগণের হাতে ন্যস্ত থাকে, তাকে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র বলে । এটি এমন একটি শাসনব্যবস্থা যেখানে শাসনকার্যে জনগণের সকলে অংশগ্রহণ করতে পারে এবং সকলে মিলে সরকার গঠন করে। এটি জনগণের অংশগ্রহণে, জনগণের দ্বারা এবং জনগণের কল্যাণার্থে পরিচালিত একটি শাসনব্যবস্থা। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে জনগণের মতপ্রকাশ ও সরকারের সমালােচনা করার সুযােগ থাকে। এতে নিয়মতান্ত্রিক পন্থায় অর্থাৎ নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তিত হয়। একাধিক রাজনৈতিক দল থাকে, সকলের স্বার্থরক্ষার সুযােগ থাকে এবং নাগরিকের অধিকার ও আইনের শাসনের স্বীকৃতি দেওয়া হয়। বাংলাদেশ, ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ইত্যাদিসহ পৃথিবীর অধিকাংশ দেশে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা রয়েছে।

গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থার গুণ

গণতন্ত্রের অনেক ভালাে দিক রয়েছে । নিচে গণতন্ত্রের কয়েকটি উল্লেখযােগ্য গুণ আলােচনা করা হলাে।

১. ব্যক্তিস্বাধীনতার রক্ষাকবচ : গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে জনগণ স্বাধীনভাবে মত প্রকাশ করতে পারে। সরকারের সমালােচনা করতে পারে। প্রতিনিধি নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিচালনায় অংশগ্রহণ করতে পারে। ফলে ব্যক্তিস্বাধীনতার বিকাশ ঘটে। নাগরিকের অধিকার রক্ষা হয় ।

২. দায়িত্বশীল শাসন : এ ব্যবস্থায় শাসকগণ জনগণের প্রতিনিধি হিসেবে জনগণের নিকট দায়ী থাকে। তারা পরবর্তী নির্বাচনে জয়ী হওয়ার জন্য জনস্বার্থমূলক কাজ করার চেষ্টা করে। ফলে দেশে দায়িত্বশীল শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়।

৩. সরকারের দক্ষতা বৃদ্ধি : গণতন্ত্রে জনগণের আস্থার উপর সরকারের স্থায়িত্ব নির্ভর করে। ফলে জনগণের আস্থা লাভের জন্য সরকার সততার সাথে দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করে। এর ফলে সরকারের দক্ষতা বৃদ্ধি পায়।

৪. সাম্য ও সমঅধিকারের প্রতীক : গণতন্ত্রে সবাই সমান। এতে জাতি, ধর্ম, বর্ণ ইত্যাদি নির্বিশেষে সবাই সমান সুযােগ বা অধিকার ভােগ করে এবং সবাই সমানভাবে রাষ্ট্রের কাজে অংশগ্রহণ করতে পারে।

৫. নাগরিকের মর্যাদা বৃদ্ধি : গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিরাই রাষ্ট্র পরিচালনা করে। নির্বাচনের মাধ্যমে সব নাগরিকের রাষ্ট্রের কাজে অংশগ্রহণের সুযােগ থাকায় তারা নিজেদের গুরুত্ব উপলব্ধি করতে পারে। এতে তাদের মধ্যে দেশাত্মবােধ সৃষ্টি হয় এবং ব্যক্তিত্বের বিকাশ ঘটে ও মর্যাদা বৃদ্ধি পায়।

আরো পড়ুন :   আইন স্বাধীনতা ও সাম্য | আইনের প্রকারভেদ | আইনের উৎস | নাগরিক জীবনে আইনের শাসন

৬. যুক্তি ও সম্মতির উপর প্রতিষ্ঠিত : গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা জনগণের সম্মতির উপর প্রতিষ্ঠিত। কাজেই গণতন্ত্রে শক্তি প্রয়ােগ বা জোর করে কিছু করার সুযােগ নেই বরং জনগণের ইচ্ছা এবং যুক্তি প্রাধান্য পায়।

৭. রাজনৈতিক শিক্ষা লাভ : গণতন্ত্রে রাষ্ট্রের শাসনকার্যে অংশগ্রহণের সুযােগ থাকায় নাগরিকগণ জটিল রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে চিন্তা করার সুযােগ পায়। নির্বাচনে অংশগ্রহণ ও রাজনৈতিক দলগুলাের বক্তব্য শুনে তাদের রাজনৈতিক সচেতনতা বৃদ্ধি পায়।

৮. বিপ্লবের সম্ভাবনা কম : গণতন্ত্র নমনীয় শাসনব্যবস্থা। জনগণ ইচ্ছে করলে শান্তিপূর্ণ উপায়ে নিয়মতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সরকার পরিবর্তন করতে পারে। ফলে এখানে বিপ্লবের প্রয়ােজন হয় না।

গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার ত্রুটি

অনেক গুণ থাকা সত্ত্বেও গণতন্ত্রের কিছু ত্রুটি আছে। নিচে এগুলাে আলােচনা করা হলাে।

১. গুণ বা যােগ্যতার চেয়ে সংখ্যার উপর গুরুত্ব প্রদান : গণতন্ত্রে নির্বাচনের মাধ্যমে জয়-পরাজয় নির্ধারণ করা হয় বলে এখানে গুণ বা যােগ্যতার চেয়ে সংখ্যার ওপর গুরুত্ব বেশি দেওয়া হয়। অর্থাৎ এতে মাথা গণনা করা হয়, মেধার বিচার করা হয় না ।

২. দলীয় শাসনব্যবস্থা : এ ব্যবস্থায় নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনকারী দল সরকার গঠন করে। নির্বাচিত দল সব সময় নিজের দলের স্বার্থের দিকে লক্ষ রেখে শাসনকার্য পরিচালনা করে। ফলে রাষ্ট্রে গণঅসন্তোষ দেখা যায় ।

৩. ব্যয়বহুল ও অর্থের অপচয় হয় : গণতন্ত্রে নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার গঠন হয়। নির্বাচন পরিচালনায় প্রচুর অর্থের প্রয়ােজন হয়। এছাড়া নির্বাচনের সময় প্রার্থীরা নির্বাচনি প্রচারের জন্য প্রচুর অর্থ ব্যয় করে। নির্বাচনে জনগণের সমর্থন আদায়ের জন্য প্রতিটি দল লিফলেট, পােস্টার, জনসভা ইত্যাদি করে প্রচুর অর্থ ব্যয় করে। এতে সময়, সম্পদ ও অর্থের অপচয় হয়।

৪. ঘন ঘন নীতির পরিবর্তন : গণতন্ত্রে ঘন ঘন সরকার পরিবর্তন হয়। গণতন্ত্রে নির্বাচিত দল নির্দিষ্ট সময়ের জন্য সরকার গঠন করে এবং প্রতিটি দল তাদের নীতির ভিত্তিতে কর্মসূচি প্রণয়ন করে। কোনাে কোনাে ক্ষেত্রে সরকারের কর্মসূচি পুরােপুরি বাস্তবায়িত হওয়ার আগেই তাদের মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। সরকার পরিবর্তনের সাথে সাথে সরকারের নীতিও পরিবর্তন হয়। ফলে কখনাে কখনাে রাষ্ট্রের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয়।

আরো পড়ুন :   সরকারের ধারণা | রাষ্ট্র ও সরকারের সম্পর্ক | সরকারের সংজ্ঞা

গণতন্ত্র সফল করার উপায় ও গণতান্ত্রিক আচরণ

গণতন্ত্র বর্তমান যুগে প্রচলিত শাসন ব্যবস্থাগুলাের মধ্যে সর্বোত্ত্বষ্ট এবং সবচেয়ে গ্রহণযােগ্য শাসনব্যবস্থা । কিন্তু এর চর্চা বা বাস্তবায়নের পথে অনেক প্রতিবন্ধকতা আছে। এসব প্রতিবন্ধকতা দূর করে গণতন্ত্রের সাফল্যের জন্য প্রয়ােজন শিক্ষিত ও সচেতন জনগােষ্ঠী, অর্থনৈতিক সাম্য ও ন্যায়ভিত্তিক সমাজব্যবস্থা, দক্ষ প্রশাসন এবং উপযুক্ত নেতৃত্ব। এ ছাড়া আরও প্রয়ােজন পরমতসহিষ্ণুতা, আইনের শাসন, মুক্ত ও স্বাধীন প্রচারযন্ত্র, একাধিক রাজনৈতিক দল ও রাজনৈতিক সহনশীলতা। তবে সবচেয়ে বেশি যেটি প্রয়ােজন তা হলাে, গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের নাগরিকদের গণতান্ত্রিক মনােভাবাপন্ন হওয়া। তাদেরকে ব্যক্তিগত, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনের সকল ক্ষেত্রে গণতান্ত্রিক আচরণ করতে হবে। এজন্য যা করা প্রয়ােজন তা হলাে

  • নাগরিকদের পরমতসহিষ্ণু হতে হবে। সবাইকে মত প্রকাশের সুযােগ দিতে হবে। অন্যের মতকে শ্রদ্ধা করতে হবে এবং অধিকাংশের মতামতকে সবার মতামত হিসেবে মেনে নেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে। নিজের বা নিজ দলীয় মতামত জোর করে অন্যদের উপর চাপিয়ে দেওয়া যাবে না।
  • ব্যক্তিগত ও দলীয় স্বার্থপরতা পরিহার করতে হবে। এটি সকল নাগরিক ও রাজনৈতিক দলের জন্য প্রযােজ্য। কেবল বিরােধিতার জন্য বিরােধিতা করলে হবে না। দেশের মঙ্গলকে প্রাধান্য দিয়ে কাজ করতে হবে।
  • নিজের অধিকার আদায়ের পাশাপাশি অন্যের অধিকারকে সম্মান করতে হবে। নিজের অধিকার আদায় যেন অন্যের অধিকার ভঙ্গের কারণ না হয়, সে বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে ।
  • বিভিন্ন সম্প্রদায় এবং দলের মধ্যে সম্প্রীতি, সহযােগিতা ও সহনশীলতা বজায় রাখতে হবে ।
  • ব্যক্তিস্বাতন্ত্রকে শ্রদ্ধা করতে হবে। সেই সাথে নাগরিকদের সুনাগরিকের গুণাবলি অর্জন করতে হবে । নাগরিকদের হতে হবে বুদ্ধিমান, আত্মসংযমী ও বিবেকবান।
  • গণতন্ত্রের বাহন হচ্ছে নির্বাচন। নির্বাচন যেন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়, সেজন্য নাগরিকদের প্রয়ােজনীয় সহযােগিতা দিতে হবে। অযােগ্য লােক যেন নির্বাচিত হতে না পারে, সেজন্য নাগরিকদের সচেতনভাবে ভােট দিয়ে উপযুক্ত লােককে নির্বাচন করতে হবে। এতে গণতন্ত্র শক্তিশালী হবে।
  • আইনের শাসন হলাে গণতন্ত্রের প্রাণ। এজন্য সবাইকে আইন মানতে হবে। আইনের চোখে সবাই সমান। অতএব, সকলের প্রতি সমান আচরণ করতে হবে। অর্থাৎ সমান অধিকার ও সুযােগ-সুবিধা দিতে হবে।

এসব গণতান্ত্রিক আচরণ শেখা ও তা প্রয়ােগের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে সফল করার জন্য প্রতিটি নাগরিককে যত্নবান হতে হবে।

আরো পড়ুন

রাষ্ট্র বলতে কি বোঝ? | আধুনিক রাষ্ট্র কাকে বলে? | রাষ্ট্রের উৎপত্তি

Bcs Preparation

নাগরিক ও নাগরিকতা | নাগরিকতা অর্জনের পদ্ধতি | দ্বৈত নাগরিকতা

Bcs Preparation

নাগরিকের কর্তব্য | কর্তব্যের শ্রেণিবিভাগ | অধিকার ও কর্তব্যের সম্পর্ক

Bcs Preparation