মেধা পাচার সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য

বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী থেকে বাছাই করা গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্নোত্তর

Brain Drain বা ‘মেধা পাচার’ একটি বহুল প্রচলিত শব্দ। মেধা পাচার বলতে সাধারণত কোনাে দেশের শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী, প্রযুক্তিবিদ, বিশেষজ্ঞ এবং দক্ষ জনশক্তির নিজ দেশ ত্যাগ করে অন্য দেশকে কর্মক্ষেত্র হিসেবে স্থায়ীভাবে বেছে নেওয়াকে বােঝায়।

সাধারণত নিজ দেশে ও বিকশিত হওয়ার মতাে পর্যাপ্ত প্রযুক্তি ও গবেষণা সুবিধার অভাব, যুদ্ধ, ভালাে জীবনযাপনের ব্যবস্থা না থাকা, অপ্রতুল বেতন-ভাতা, রাজনৈতিক অস্থিরতা বা জীবন যাপনের ঝুঁকি এড়াতে মানুষ নিজ দেশ থেকে অন্য দেশে পাড়ি জমায়। এতে একটি দেশ তার সবচেয়ে মেধাবী, জ্ঞানী, দক্ষ ও যােগ্য নাগরিককে হারায়।

এই মেধা পাচার ঘটে সাধারণত অনুন্নত এবং উন্নয়নশীল দেশ থেকে। কম বেশি সকল দেশেই এ সমস্যা আজ প্রকট। এক সমীক্ষায় দেখা যায়, ১৯৬০-১৯৯০ সাল পর্যন্ত শুধু যুক্তরাষ্ট্র ও ও কানাডা অনুন্নত বিশ্ব থেকে ১০ লাখ মেধাবী, দক্ষ, কারিগরি ও পেশাদার ব্যক্তি গ্রহণ করেছে।

শিক্ষাবিষয়ক আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান Open doors এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন দেশ থেকে বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী উন্নত দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছে। এসকল শিক্ষার্থীর ৩০% শিক্ষাজীবন শেষ হওয়ার ৫ বছর পরও নিজ দেশে ফেরত যায় না।

UNESCO এর Global Flow of Tertiary Level Students are sconto ২০১৯-এর তথ্য অনুযায়ী, এক বছরে বাংলাদেশ থেকে মােট ৫৭,৬৭৫ জন শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়।

মেধা পাচার সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Scroll to top