আগস্ট ৫, ২০২১
Home » বিসিএস প্রস্তুতি : ভূগােল (বাংলাদেশ ও বিশ্ব), পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা পর্ব- ০১
ভূগোল পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা

বিসিএস প্রস্তুতি : ভূগােল (বাংলাদেশ ও বিশ্ব), পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা পর্ব- ০১

বিসিএস প্রস্তুতি : ভূগােল (বাংলাদেশ ও বিশ্ব), পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা পর্ব- ০২

বিসিএস প্রস্তুতি : ভূগােল (বাংলাদেশ ও বিশ্ব), পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা পর্ব- ০১

  • ভূ-প্রকৃতির ভিত্তিতে বাংলাদেশকে প্রধানত ভাগ করা যায়—তিনটি শ্রেণিতে।
  • টারশিয়ারি যুগের পাহাড়— দু’ভাগে বিভক্ত। ক. দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের পাহাড়সমূহ ও খ. উত্তর ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের পাহাড়সমূহ।
  • বাংলাদেশের সমভূমি উত্তর অংশ থেকে উপকূলের দিকে ক্রমনিম্ন।
  • দেশের সবচেয়ে উঁচু জেলা- দিনাজপুর, উচ্চতা ৩৭.৫০ মিটার।
  • পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকা বাংলাদেশের মােটামুটি ১০ ভাগের ১ ভাগ।
  • পার্বত্য চট্টগ্রাম গঠিত ৩টি জেলা নিয়ে রাঙামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি।
  • পাহাড়ি অঞ্চল— দক্ষিণ পূর্বে পার্বত্য চট্টগ্রাম, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার এবং উত্তর ও উত্তর পূর্বাঞ্চলে বৃহত্তর সিলেট, ময়মনসিংহ ও নেত্রকোনা।
  • সােপান অঞ্চল– বরেন্দ্রভূমি, ভাওয়ালের গড়, লালমাই পাহাড়।
  • প্লাবন সমভূমি অঞ্চল— পাহাড়ি অঞ্চল, সােপান অঞ্চল ছাড়া দেশের অবশিষ্ট সমভূমি।
  • বাংলাদেশের অবস্থান উত্তর অক্ষাংশের ২০°৩৪’ – ২৬°৩৮’ এবং পূর্ব দ্রাঘিমার ৮৮°০১-৯২°৪১।
  • কর্কটক্রান্তি রেখা ট্রপিক অব ক্যানসার) বাংলাদেশের মধ্যখান দিয়ে গিয়েছে।
  • বাংলাদেশের আয়তন ১,৪৭,৫৭০ বর্গ কিলােমিটার বা ৫৬,৯৭৭ বর্গমাইল।
  • আয়তনের দিক থেকে বিশ্বে অবস্থান— ৯৩তম (স্বাধীন দেশ হিসেবে ৯২তম)।
  • সময় গ্রীনিচের ৬ ঘন্টা আগে ।
  • বাংলাদেশ-ভারত সমুদ্র বিরােধ নিষ্পত্তি রায়ে বাংলাদেশের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়—১৯,৪৬৭ বর্গ কি. মি.।
  • বাংলাদেশের সাথে ভারতের ৫টি রাজ্যের সীমান্ত রয়েছে। এগুলাে হলাে- আসাম, মিজোরাম, ত্রিপুরা, মেঘালয়, পশ্চিমবঙ্গ। (মনে রাখুন- আমিত্রি মেঘের পরে]
  • বাংলাদেশের দক্ষিণে ভারতের আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ, বঙ্গোপসাগরে অবস্থিত।
  • বাংলাদেশের সীমানা উত্তরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও মেঘালয়, পূর্বে ভারতের আসাম, ত্রিপুরা, মিজোরাম এবং মিয়ানমার।
  • পশ্চিমে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ এবং দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর।
  • সার্কভুক্ত দেশসমূহের মধ্যে আয়তনে বাংলাদেশের অবস্থান চতুর্থ (ভারত-১ম, পাকিস্তান২য়, আফগানিস্তান-৩য়)।
  • পশ্চিমবঙ্গের সাথে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলা– ১৫টি আসামের সাথে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলা— ৪টি (কুড়িগ্রাম, সিলেট, সুনামগঞ্জ ও মৌলভীবাজার)।
  • ত্রিপুরার সাথে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলা— ৬টি (ফেনী, কুমিল্লা, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, খাগড়াছড়ি ও চট্টগ্রাম)।
  • মেঘালয়ের সাথে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলা— ৪টি (নেত্রকোনা, শেরপুর, জামালপুর ও ময়মনসিংহ)।
  • ত্রিপুরা ও মিজোরামের সাথে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলা— ১টি (রাঙ্গামাটি)।
  • মিয়ানমারের সাথে বাংলাদেশের সীমান্ত জেলা-৩টি।
  • বাংলাদেশের সাথে মিয়ানমারের সীমান্ত রাজ্য— ২টি (রাখাইন ও শান)।
  • বাংলাদেশ, ভারত ও মিয়ানমারের সীমান্ত পরস্পরকে ছুয়েছে— রাঙ্গামাটি জেলায়।
  • ভারতের সেভেন সিস্টারস নামে পরিচিত রাজ্যগুলাে হলাে— আসাম, মিজোরাম, মণিপুর, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, অরুনাচল ও ত্রিপুরা।
  • ভারতের সেভেন সিস্টারস নামে পরিচিত রাজ্যগুলাের মধ্যে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী রাজ্য ৪টি (আসাম, মিজোরাম, মেঘালয় ও ত্রিপুরা) এবং সীমান্ত সংলগ্ন নয়— ৩টি রাজ্য (মণিপুর, নাগাল্যান্ড ও অরুনাচল)।
  • ঢাকার প্রতিপাদ স্থান চিলির নিকট প্রশান্ত মহাসাগরে।
  • বাংলাদেশের মােট সীমান্ত দৈর্ঘ্য- ৪,৭১১কি.মি. (ভারতের সাথে-৩,৭১৫ কি.মি.; মিয়ানমারের সাথে ২৮০ কি.মি. এবং সমুদ্র উপকূল- ৭১৬কি.মি.)। (সূত্র: ভূগােল ও পরিবেশ, নবম-দশম শ্রেণি] ভারতের সাথে জলসীমা- ১৮০ কি. মি.।
  • পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের (কক্সবাজার) দৈর্ঘ্য ১২০ কি. মি.।
  • সাগর কন্যা নামে পরিচিত কুয়াকাটা (পটুয়াখালি) সৈকতের দৈর্ঘ্য ১৮ কি. মি । (সূত্র: বাংলাপিডিয়া)
  • পারকি সমুদ্র সৈকত অবস্থিত – চট্টগ্রামের আনােয়ারা থানায়।
  • বাংলাদেশের রাজনৈতিক সমুদ্র সীমা– ১২ নটিক্যাল মাইল।
  • অর্থনৈতিক সমুদ্র সীমা— ২০০ নটিক্যাল মাইল (EEZ), ১ নটিক্যাল মাইল = ১.৮৫৩ কি. মি.।
  • তিনবিঘা করিডাের অবস্থিত— লালমনিরহাট।
  • বাংলাদেশের সাথে সীমান্ত সংযােগ রয়েছে ভারত ও মিয়ানমারের।
  • মিয়ানমারের সাথে বাংলাদেশের সীমান্ত জেলা রাঙ্গামাটি, বান্দরবান ও কক্সবাজার।
  • বাংলাদেশের মােট সীমান্তবর্তী জেলা ৩২টি।
  • ভারতের সাথে ৩০টি ও মিয়ানমারের সাথে ৩টি সীমান্তবর্তী জেলা (রাঙামাটি জেলা ভারত ও মায়ানমার উভয়ের সাথে সীমান্তবর্তী)।
  • যে বিভাগের সাথে কোন সীমান্ত সংযােগ নেই—বরিশাল ও ঢাকা।
  • ছিটমহল হলাে একটি দেশের অভ্যন্তরে আর একটি দেশের বিছিন্ন ভূখণ্ড।
  • ভারতের ভিতরে বাংলাদেশের ৫১টি এবং বাংলাদেশের ভিতরে ভারতের ১১১টি ছিটমহল ছিল।
  • ভারতের অধিকাংশ ছিটমহল ছিল বাংলাদেশের লালমনিরহাটে (৫৯টি)।
  • ছিটমহল বিনিময় হয় ৩১ জুলাই, ২০১৫।
  • ভারতের অভ্যন্তরে অবস্থিত বাংলাদেশের সব ছিটমহলই ছিল পশ্চিমবঙ্গের কুচবিহারে (৪৭টি)।
  • বাংলাদেশে অবস্থিত ভারতের ছিটমহলগুলাে ছিল চারটি জেলায়। এগুলাে হলাে- লালমনিরহাট, নীলফামারী, পঞ্চগড় ও কুড়িগ্রাম। (মনে রাখুন- লাল, নীল, পঞ্চ, কুড়ি]
  • দহগ্রাম আঙ্গরপােতা ছিটমহল ছিল বাংলাদেশের লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম থানায়।
  • রঘুনাথপুর সীমান্তবর্তী স্থানটি চাপাইনবাবগঞ্জে এবং বিলােনিয়া ফেনীতে।
  • রৌমারী, বড়াইবাড়ী, ইতালামারী সীমান্তবর্তী স্থানগুলাে অবস্থিত—কুড়িগ্রামে।
  • পাদুয়া, প্রতাপপুর, গােয়াইনঘাট, জয়ন্তাপুর, কানাইঘাট, জকিগঞ্জ সীমান্তবর্তী স্থানগুলাে সিলেটে।
  • বাংলাদেশের উল্লেখযােগ্য সীমান্তবর্তী স্থান ও জেলা— বেড়বাড়ী (পঞ্চগড়), বুড়িমারী (লালমনিরহাট), হিলি ও বিরল (দিনাজপুর), বেনাপােল (যশাের), কলারােয়া (সাতক্ষীরা), হালুয়াঘাট (ময়মনসিংহ), চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ), বুড়িচং (কুমিল্লা), পানছড়ি (খাগড়াছড়ি), উখিয়া (কক্সবাজার)।
  • সিলেটের গােয়াইনঘাট (তামাবিল) সীমান্তের ভারতীয় অংশের নাম— ডাউকি।
  • বেনাপােল স্থলবন্দরের ভারতীয় অংশের নাম পেট্রোপল।
  • বাংলাদেশের সর্বোচ্চ পর্বত শৃঙ্গ তাজিনডং (বিজয়), উচ্চতা- ১২৩১ মিটার।
  • ২য় সর্বোচ্চ পর্বত শৃঙ্গ ক্রেওক্রাডং, উচ্চতা- ১২৩০ মিটার।
  • বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের জেলা- ৯টি। এগুলাে হলােমুর্শিদাবাদ, নদীয়া, উত্তর চব্বিশ পরগনা, মালদহ, উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিণ দিনাজপুর, জলপাইগুড়ি, কুচবিহার ও দার্জিলিং।
  • বাংলাদেশে সবচেয়ে উঁচু পাহাড় গারাে পাহাড় (ময়মনসিংহ)।
  • চন্দ্রনাথ পাহাড় চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে, চিম্বুক পাহাড় বান্দারবানে এবং লালমাই পাহাড়-কুমিল্লায় অবস্থিত।
  • হালদা, সাঙ্গ ও ভেঙ্গি উপত্যকা অবস্থিত যথাক্রমে- খাগড়াছড়ি, চট্টগ্রাম ও রাঙ্গামাটি জেলায়।
  • বাংলাদেশকে বলা হয়— ছয় ঋতুর দেশ, নদীমাতৃক দেশ, ভাটির দেশ, সােনালী আঁশের দেশ।
  • ঢাকাকে বলা হয়—মসজিদের শহর, রিক্সার নগরী।
  • ভাসান চর নােয়াখালী (পূর্ব নাম ঠেঙ্গার চর)।
  • স্বর্ণ দ্বীপ- নােয়াখালী, আয়তন ৩৬০ বর্গ কি. মি., এখানে সােনা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রয়েছে।
  • সাগর কন্যা বলা হয়— সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের দর্শনীয় স্থান কুয়াকাটা (পটুয়াখালি)।
  • অপরপক্ষে সাগর দ্বীপ বলা হয়- ভােলাকে।
  • কুমিল্লার দুঃখ গােমতি নদী এবং প্রাচ্যের ডান্ডি—নায়ারনগঞ্জ।
  • বাংলার ভেনিস ও শস্যভান্ডার হিসেবে পরিচিত— বরিশাল।

আরো পড়ুন

মহাবিশ্ব ও আমাদের পৃথিবী The Universe and Our Earth

Bcs Preparation

ভূগােল ও পরিবেশ Geography and Environment | নবম দশম শ্রেণী

Bcs Preparation

ভূগোল পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা থেকে কিছু প্রশ্নোত্তর

Bcs Preparation