পৌরনীতি ও নাগরিকতা

বাংলাদেশের সংবিধানের সংশােধনীসমূহ

১৯৭২ সালে সংবিধান প্রণয়নের পর থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশের সংবিধান মােট ১৬ বার সংশােধন করা হয়েছে। বাংলাদেশ সংবিধানের ১৬টি সংশােধনীর প্রধান প্রধান বৈশিষ্ট্য নিম্নে বর্ণিত হলাে

সংশােধনী
সময় বিষয়বস্তু 
প্রথম সংশােধনী জুলাই, ১৯৭৩
  •  ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময়কার মানবতাবিরােধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিধান করা হয়।
দ্বিতীয় সংশােধনী  সেপ্টেম্বর, ১৯৭৩
  • দেশের ভেতরে গােলযােগ, যুদ্ধের আশঙ্কা কিংবা মানুষের জীবনযাত্রায় সংকট দেখা দিলে রাষ্ট্রপতিকে প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শক্রমে জরুরি অবস্থা ঘােষণার ক্ষমতা দেওয়া হয়।
তৃতীয় সংশােধনী  নভেম্বর, ১৯৭৪
  • বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর মধ্যে ভারত বাংলাদেশের সীমান্ত সংক্রান্ত যে চুক্তি হয়, তৃতীয় সংশােধনীতে তা বৈধ ঘােষণা করা হয়।
চতুর্থ সংশােধনী  জানুয়ারি, ১৯৭৫
  • সংসদীয় সরকারব্যবস্থার পরিবর্তে রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকারব্যবস্থা প্রবর্তন করা হয়।
  • উপরাষ্ট্রপতির পদ সৃষ্টি এবং সকল রাজনৈতিক দল বিলুপ্ত করে একটিমাত্র জাতীয় দল সৃষ্টি করা হয়।
পঞ্চম সংশােধনী এপ্রিল, ১৯৭৯
  • ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পরে সামরিক সরকার কর্তৃক যেসব বিধিবিধান প্রণয়ন ও সংবিধানের সংশােধনী আনা হয়েছে, সেগুলাে পঞ্চম সংশােধনী আইনে বৈধ বলে ঘােষণা করা হয়।
  • রাষ্ট্রীয় মূলনীতি পরিবর্তন করা হয়।
  • বাংলাদেশের নাগরিকতা বাঙালি’ থেকে বাংলাদেশি’ করা হয়।
ষষ্ঠ সংশােধনী জুলাই, ১৯৮১
  • উপরাষ্ট্রপতির পদ লাভজনক নয় এই বিধান করে বিচারপতি আব্দুস সাত্তারকে  রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়।
সপ্তম সংশােধনী নভেম্বর, ১৯৮৬
  • ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ থেকে ১৯৮৬ সালের নভেম্বর পর্যন্ত জেনারেল এরশাদ যেসব বিধি-বিধান ও সামরিক আইন জারি এবং তার ভিত্তিতে যেসব কাজ সম্পাদন করেছিলেন, সেগুলােকে এ সংশােধনীতে বৈধতা দেওয়া হয়।
অষ্টম সংশােধনী জুন, ১৯৮৮
  • বাংলাদেশের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম এবং ঢাকার বাইরে হাইকোর্টের ৬টি বেঞ্চ স্থাপন করা হয়।
নবম সংশােধনী জুলাই, ১৯৮৯
  • জনগণের সরাসরি ভােটে উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনের বিধান করা হয়।
  • রাষ্ট্রপতি পদে কোনােব্যক্তি পর পর দুই মেয়াদের অধিক অধিষ্ঠিত না হতে পারার নিয়ম করাহয়।
দশম সংশােধনী জুন, ১৯৯০
  • জাতীয় সংসদে মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত ৩০টি আসনের সময় আরও ১০ বছর বৃদ্ধি করা হয়।
একাদশ সংশােধনী আগস্ট, ১৯৯১
  • অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি হিসেবে প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ কর্তৃক প্রয়ােগকৃত সকল কার্যক্রমবৈধ করা হয় এবং পুনরায় তাঁর প্রধান বিচারপতিপদে ফিরে যাবার বিধান করা হয়।
দ্বাদশ সংশােধনী সেপ্টেম্বর, ১৯৯১
  • রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকারব্যবস্থার পরিবর্তে সংসদীয় সরকারব্যবস্থা পুনঃপ্রবর্তন হয়।
  • উপরাষ্ট্রপতির পদ বিলুপ্ত করা হয়।
এয়ােদশ সংশােধনী মার্চ, ১৯৯৬
  • অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা প্রবর্তন করা হয়।
চতুর্দশ সংশােধনী মে, ২০০৪
  • মহিলাদের জন্য জাতীয় সংসদে ৪৫টি আসন সংরক্ষণ করা হয়।
  • রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর প্রতিকৃতি সরকারি অফিসসহ নির্ধারিত প্রতিষ্ঠানে সংরক্ষণ ও প্রদর্শনের বিধান করা হয় ।
  • সুপ্রীমকোর্টের বিচারক, পিএসসির চেয়ারম্যান ও সদস্যদের অবসরের বয়সসীমা বৃদ্ধি করা হয়।
পঞ্চদশ সংশােধনী জুলাই, ২০১১
  • তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা বিলুপ্ত করা হয়।
  • ১৯৭২ মূল সংবিধানের রাষ্ট্রীয় চার মূলনীতি যথা : জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র,  ধর্মনিরপেক্ষতা ও সমাজতন্ত্র পুনঃপ্রবর্তন করা হয়।
  • রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম রাখার পাশাপাশি সকল ধর্মচর্চার স্বাধীনতা নিশ্চিত করা হয়।
  • জাতীয় সংসদে মহিলাদের জন্য ৫০টি আসন সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়।
ঘােড়শ সংশােধনী সেপ্টেম্বর, ২০১৪
  • সুপ্রীম কোর্টের বিচারপতিদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে আনার বিধান পুন:প্রবর্তন করা হয়।
সপ্তদশ সংশোধন জুলাই, ২০১৮
  • আরও ২৫ বছরের জন্য জাতীয় সংসদের ৫০টি আসন শুধুমাত্র নারী সদস্যদের জন্য সংরক্ষিত রাখা।

আরো পড়ুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button