জীবনযাপনস্বাস্থ্য টিপস

গলায় বা খাদ্যনালীতে কিছু আটকে গেলে করণীয়

অন্যমনস্কভাবে খাওয়ার সময় মাছের কাঁটা/মাংসের হাঁড় অথবা ছােট ছােট শিশুরা খেলার সময় কোন কিছু মুখে দিলে তা গলায় আটকে যেতে পারে। এটা একটি মেডিক্যাল ইমারজেন্সি। এমতাবস্থায় রােগীকে যত শীঘ্র সম্ভব হাসপাতালের জরুরী বিভাগে অথবা নিকটস্থ নাক কান গলা বিশেষজ্ঞের কাছে নিয়ে যেতে হবে।

কি কি গলায় আটকাতে পারে :

  • দাতব মুদ্রা বা পয়সা
  • খেলনার ছােট ছােট অংশ
  • বাঁধানাে দাঁত
  • মাছের কাঁটা
  • মাংসের হাঁড়
  • সুই/সেপ্টিপিন এবং আরাে অনেক কিছু।

খাদ্যনালীর কোথায় আটকাতে পারে:

গলবিল ও খাদ্যনালী এর সংযুক্ত স্থান হলাে খাদ্যনালীর সবচেয়ে সংকীর্ণ জায়গা। এইখানেই বেশিরভাগ জিনিস আটকায়। এ ছাড়াও খাদ্যনালীতে চারটি সংকোচিত পয়েন্টে যে কোন কিছু আটকাতে পারে।

রােগের লক্ষণ সমূহ:

  • রােগীর বা রােগীর লােকজন কোন কিছু খেয়ে ফেলার অথবা গলায় আটকে যাওয়ার কথা বলবে
  • ঢােক গিলতে অসুবিধা হতে পারে।
  • গলা ব্যথা হতে পারে
  • অতিরিক্ত লালা বের হওয়া
  • বমি বমি ভাব হওয়া।

রােগ নির্ণয় করার উপায়:

  • রােগের লক্ষণসমূহ থেকে
  • গলার বা বুকের এক্সরে করে দেখা যাবে।
  • ইসােফ্যাগােস্কপির মাধ্যমে নিশ্চিত হতে পারি।

চিকিৎসা:

যেহেতু এটি একটি মেডিক্যাল ইমারজেন্সি অবস্থা, সেজন্য রােগীকে অবশ্যই হাসপাতালে ভর্তি করতে হবে। এরপর সম্পূর্ণ অজ্ঞান করে ইসােফ্যাগােস্কপির (এন্ডােসকপি) মাধ্যমে খাদ্যনালীতে আটকানাে জিনিস বের করতে হবে।

চিকিৎসা না করার ফলে কি কি অসুবিধা হতে পারে:

  • খাদ্যনালীতে ইনফেকশন হতে পারে
  • খাদ্যনালী ফুটা হয়ে ফুসফুসে ইনফেকশন অথবা পুঁজ জমতে পারে। (যদি ধারালাে কিছু হয়) এমনকি রােগী মৃত্যুবরণও করতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button