টিপস

কম সময়ে বেশি কাজ করার কৌশল

কম সময়ে বেশি কাজ করার কৌশল: সময় জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ। সময়ের অপব্যবহারে মানুষের জীবন অর্থহীন হয়ে যায়, আবার সময়ের পরিপূর্ণ ব্যবহারে কেউ হয়ে ওঠে সফল ও ঈর্ষণীয় সাফল্যের অধিকারী। সময়কে কাজে লাগানাের এমন কিছু কার্যকর কৌশল নিচে উল্লেখ করা হলাে।

কাজের লক্ষ্য স্থির করা

লক্ষ্য স্থির করে কাজ করলে দ্রুত বা নির্দিষ্ট সময়ে কাজ করা যায়। এতে মনের সাথে কাজের যােগসূত্র রচিত হওয়ায় কাজ সুচারুরূপে করা যায়।

কাজের তালিকা তৈরি ও কঠোরভাবে মেনে চলা

আগের রাতে পরবর্তী দিনের কাজের তালিকা তৈরি করতে হবে। সাথে আনুমানিক সময় নির্দিষ্ট করে রাখতে হবে। সে সাথে কাজের তালিকা কঠোরভাবে মেনে চলার চেষ্টা করতে হবে।

একই ধরনের কাজগুলােকে শ্রেণিবদ্ধ করা

একই ধরনের কাজগুলাে একবারে করে ফেললে অনেক সময় বেঁচে যায়। আর এতে মনােযােগও অটুট থাকবে। তাই একই ধরনের কাজগুলো তালিকায় সাজিয়ে নিতে হবে।

পূর্ব কাজের সূত্র ধরে কাজ করা

অনেক সময় পূর্বের কাজের ধারাবাহিকতায় নতুন কোনাে কাজ হাতে নিতে হয়। সেক্ষেত্রে ই-মেইল, প্রেজেন্টেশন, রিপাের্ট ইত্যাদি পূর্বের কাজের কিছু অংশ পুন:ব্যবহার করে অল্প সময়ে কাজ সেরে ফেলা যায়।

গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলােকে অগ্রাধিকার দেয়া

দিনের গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলাে আগে করে ফেলার চেষ্টা করতে হবে। এতে মানসিক তৃপ্তি বেড়ে যাবে, ফলে পরবর্তী কাজগুলােকে আরাে বেশি গতিতে এগিয়ে নেয়া যাবে।

কাজের দক্ষতা বাড়ানাে

কাজে দক্ষতা থাকলে অল্প সময়ে বেশি কাজ করা যায়। তাই নিয়মিত কাজগুলােতে অনুশীলনের মাধ্যমে দক্ষতা আনয়ণ করতে পারলে সময় বাঁচিয়ে অধিক কাজ করা যায়।

এক সাথে একাধিক কাজ না করা

এক সাথে একাধিক কাজ করলে কখনােই তা সুন্দরভাবে সম্পন্ন হয় না। এক্ষেত্রে কর্মদক্ষতাও কমে যায়। তাই উচিত একটি কাজ শেষ করার পর অপরটি শুরু করা।

সময়ানুবর্তিতা মেনে চলা

কম সময়ে বেশি কাজ করতে হলে অবশ্যই সময় বেঁধে কাজ করতে হবে। কাজের জন্য বরাদ্দকৃত সময়েই তা শেষ করার চেষ্টা করতে হবে। আজকের কাজ আগামী দিনের জন্য ফেলে রাখা যাবে না।

Mentors’ Speech

সফল হতে সময়কে কাজে লাগানাের বিকল্প নেই। প্রখ্যাত মার্কিন উদ্যোক্তা ও লেখক টিমােথি ফেরিস তার বেস্ট সেলিং বই The 4-Hour Workweek– এ অর্থনীতিবিদ ভিলফ্রেডাে প্যারেটোর 80/20 Rule (কাজের ৮০% ফল আসে ২০% প্রচেষ্টায়, আর বাকি ২০% ফল আসে ৮০% প্রচেষ্টায় ব্যবহার করে কম সময়ে বেশি কাজ করার ৪টি উপায় করেছেন, সেগুলাে হলাে

  • ভেবে-চিন্তে জীবনের লক্ষ্য নির্দিষ্ট করা।
  • সময় নষ্টকারী বিষয়গুলাে বাদ দেয়া
  • ছােট কাজগুলো অন্যকে দিয়ে করিয়ে বড় কাজের জন্য সময় বের করা।
  • উপরের উপায়গুলাে ঠিক থাকলে প্রয়ােজনে সময় বাঁচাতে ঘরে বসে কাজ করা।

কাজের ভুল থেকে শিক্ষা নেয়া

কাজের ভুল নিয়ে চিন্তা করতে হবে, একই সাথে নিজেকে শুধরাতে হবে। এতে পরবর্তীতে একই ভুলে সময় নষ্ট হবে না।

মনােযােগ অটুট রাখা

কাজ করার সময় মনােযােগ না থাকলে তা শেষ হতে সময় বেশি লাগে। প্রয়ােজনে কাজ করার সময় মােবাইল ফোন বন্ধ বা Silent Mode এ রাখা যেতে পারে। একইভাবে বাসায় থেকে কাজ করার সময় পারিবারিক জীবন আলাদা রেখে কাজ করতে হবে। এ সময় নষ্ট করে এমন কাজ পরিহার করা।

সময় নষ্ট করে এমন কাজ বা ক্ষেত্রগুলােকে খুঁজে বের করতে হবে

ফেসবুক, ইউটিউবসহ সামাজিক যােগাযােগ মাধ্যমগুলােতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ করা হলেও অনেক সময় তা সময় নষ্টেরও কারণ হয়। তাই এর পরিমিত ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। তাছাড়া অকারণে ইন্টারনেট ঘাটাঘাটিও বাদ দিতে হবে।

প্রতিটি জিনিস যথাস্থানে রাখা

কাগজপত্র, চাবি ইত্যাদি প্রয়ােজনীয় জিনিস কাজ শেষে নির্দিষ্ট স্থানে রাখতে হবে। নইলে এগুলাে খুঁজতে অতিরিক্ত সময় ব্যয় হবে এবং মনােযােগে বিঘ্ন ঘটবে।

কাজের ফাঁকে বিরতি নেয়া

কাজের ফাঁকে সুযােগ পেলেই ছােট ছােট বিরতি নেয়ার চেষ্টা করতে হবে। এতে মনােনিবেশ করার ক্ষমতা বাড়বে, শরীর ক্লান্তিহীন থাকবে এবং মস্তিষ্কও সক্রিয় থাকবে। ফলে কাজের গতি বাড়বে।

সময়ের এক ফোঁড়, অসময়ের দশ ফোঁড়। সময়ের পরিকল্পিত ব্যবহারই কম সময়ে বেশি কাজ করার মূল মন্ত্র। আর এটি করতে পারলেই সাফল্যের স্বর্ণদুয়ারে পৌঁছানাে সম্ভব হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button